নরসিংদীতে কলেজছাত্রী অপহরণের অভিযোগে ৩ জন গ্রেপ্তার

২০ মার্চ ২০২৪, ১০:৩২ পিএম | আপডেট: ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৫৮ এএম


নরসিংদীতে কলেজছাত্রী অপহরণের অভিযোগে ৩ জন গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নরসিংদী শহরের সিএন্ডবি রোডস্থ সোনালী ব্যাংকের সামনে থেকে মাইক্রোবাসে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অপহৃতাকে উদ্ধার ও অভিযুক্ত ৩ জনকে আটকের পর বুধবার সন্ধ্যায় সদর থানায় মামলা হয়েছে। ভুক্তভোগীর মা বাদী হয়ে ৪ জনের বিরুদ্ধে  অপহরণ মামলা করেন বলে জানিয়েছেন নরসিংদী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. তানভীর আহমেদ।

এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার ছনপাড়া এলাকা থেকে মাইক্রোবাস হতে অপহৃতাকে উদ্ধার ও অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন সদর উপজেলার আলোকবালী ইউনিয়নের কাজিরকান্দি গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে মুজিবুর রহমান (২৫), আমিরুল ইসলামের ছেলে ইরফান (২১) ও নরসিংদী শহরের বীরপুর এলাকার শামসুল হকের ছেলে জিয়াউল হক মোবিন (২২)।

 

পুলিশ ও পরিবার সুত্রে জানা যায়, নরসিংদী সরকারী মহিলা কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের ছাত্রী (১৮) সদর উপজেলার আলোকবালী ইউনিয়নের বাসিন্দা। একই এলাকার মাইনউদ্দিনের ছেলে আনিকুল ইসলাম ওরফে আশিক (২৩) ভুক্তভোগী মেয়েকে ২ বছর আগে স্কুলে পড়া অবস্থায় প্রেমের প্রস্তাব দেয়া সহ বিভিন্নভাবে উত্যক্ত করে আসছিল। পরে মেয়ের বাসায় বিয়ের প্রস্তাব পাঠালে ভুক্তভোগীর পরিবার নাকচ করে দেয়।

বুধবার সকালে ২ বান্ধবীসহ আলোকবালী থেকে নরসিংদী সরকারী মহিলা কলেজে যাচ্ছিল ওই ছাত্রী। সকাল ৯ টার নরসিংদী শহরের সিএন্ডবি রোডস্থ সোনালী ব্যাংকের সামনে পৌঁছালে একটি সাদা মাইক্রোবাসে ৩ যুবক ওই ছাত্রীকে তুলে নিয়ে যায়। পরে বান্ধবীরা গাড়ীর নাম্বারটি কলেজ কর্তৃপক্ষকে জানালে তারা পুলিশকে অবহিত করে। পুলিশ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার ছনপাড়া এলাকা থেকে মুজিবুর, মোবিন এবং ইরফানকে আটক করে এবং ভুক্তভোগী ছাত্রীকে উদ্ধার করে সদর থানায় নিয়ে যায়।  

অপহরণের শিকার ছাত্রীর মা বাদী হয়ে আশিক সহ আরও ৩ জনের নাম উল্লেখ করে সদর মডেল থানায় মামলা করেন।

নরসিংদী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) মো. তানভীর আহমেদ বলেন, " আশিক নামের একজন মেয়েটিকে অপহরণ করে নেয়ার জন্য ৩ জন যুবককে পাঠায়। আমরা খবর পেয়ে ভুক্তভোগী মেয়েসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করি। পরে আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।"

ওসি আরও বলেন, ভুক্তভোগীর মায়ের লিখিত অভিযোগটি বুধবার সন্ধ্যায় মামলা হিসেবে এজাহারভুক্ত করেছি এবং প্রধান অভিযুক্ত আসামী আশিককে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 



এই বিভাগের আরও