গরীবের মেহমানখানার পর বৃদ্ধাশ্রমের উদ্যোগ

০২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৯ পিএম | আপডেট: ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:০৭ পিএম


গরীবের মেহমানখানার পর বৃদ্ধাশ্রমের উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:  

নরসিংদীতে করোনায় লকডাউনে বিপাকে পড়া অসহায় ও দরিদ্র মানুষের বিনামূল্যে দুপুরের খাবারের জন্য চালু হওয়া মেহমানখানার সমাপনী হয়েছে। আমরা ক’জন নামে স্থানীয় কয়েকজন উদ্যোক্তার প্রচেষ্টায় দীর্ঘ এক মাস চলার পর বৃহস্পতিবার দুপুরে এর সমাপনী হয়েছে।

এর আগে গত ৩ আগস্ট থেকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে শহরের জেলখানা মোড়স্থ একটি রেষ্টুরেন্ট এর সামনে এই মেহমানখানা চালু করা হয়। মেহমানখানার পর আগামীকাল শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) ক্ষুদ্র পরিসরে “আলোছায়া নামক” একটি বৃদ্ধাশ্রমের যাত্রা শুরু হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মেহমানখানার প্রধান উদ্যোক্তা নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো: মাজহারুল পারভেজ।

উদ্যোক্তারা জানান, করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনজনিত কারণে অনেকের আয়ের পথ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কয়েকজন উদ্যোক্তার প্রচেষ্টায় এই মেহমানখানা চালু করা হয়। গত এক মাস প্রতিদিন দুপুর ১টায় ক্ষুর্ধাত দরিদ্র মানুষের পাশে থেকে মেহমানদারী করা হয়। এসময় প্রতিদিন গড়ে ৩৫০ জন দরিদ্র ও বিপাকে পড়া মানুষকে পেট ভরে খিচুরি, পোলাও খেতে দেয়া হয়। শেষ দিন কাচ্চি বিরিয়ানির আয়োজন ছিল মেহমানখানায়।

প্রধান উদ্যোক্তা নরসিংদী প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো: মাজহারুল পারভেজ জানান, মেহমানদারি করতে গিয়ে অনেক অসহায় বৃদ্ধ মানুষের সাথে পরিচয় হয়েছে। তাদের জীবনের অনেক দু:খ কষ্ট সম্পর্কে জানতে পারি আমরা। করোনা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি ও লকডাউন তুলে দেয়ায় এক মাস পর মেহমানখানার সমাপনী হয়েছে। এখন অসহায় বৃদ্ধদের মাথা গোঁজার ঠায় করার চেষ্টায় আলোছায়া নামে ক্ষুদ্র পরিসরে একটি বৃদ্ধাশ্রম করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ্ররই মধ্যে চিনিশপুর এলাকার একজন মহৎ ব্যক্তি তাঁর বাড়ির একটি ফ্ল্যাট খালি করে দিয়ে আলোছায়ার যাত্রাপথ খুলে দিয়েছেন।  শুক্রবার থেকে আলোছায়া বৃদ্ধাশ্রমে একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিসহ মোট ৪ জন অসহায় বৃদ্ধ আশ্রয় পাচ্ছেন। সাধ্য অনুযায়ী ভবিষ্যতে বৃদ্ধাশ্রমটি বড় পরিসরে পরিচালনার পরিকল্পনা রয়েছে।