জেলায় জেলায় ঘুরে ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ ও দাবি হানিফ বাংলাদেশির

৩১ জানুয়ারি ২০২১, ০৭:১০ পিএম | আপডেট: ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪০ পিএম


জেলায় জেলায় ঘুরে ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ ও দাবি হানিফ বাংলাদেশির

নিজস্ব প্রতিবেদক:

দেশের বিভিন্ন জেলায় গিয়ে একাই ব্যানার ফেস্টুন হাতে দাড়িয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার দাবি জানাচ্ছেন হানিফ বাংলাদেশি নামে নোয়াখালীর এক যুবক। রোববার (৩১ জানুয়ারি) দিনব্যাপী নরসিংদী জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ব্যানার ও ফেস্টুন হাতে দাড়িয়ে ব্যতিক্রম কর্মসূচী পালন করতে দেখা গেছে তাকে।

নোয়াখালী জেলার জাহান নগর গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নানের ৪০ বছর বয়সী ছেলে হানিফ বাংলাদেশি থাকেন ঢাকার তোপখানা রোডে। পেশায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের খন্ডকালীন চাকুরিজীবী।

বাংলাদেশ যুবশক্তি নামের একটি সংগঠনের আহবায়ক হানিফ, ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত তার এই মার্চ ফর ডেমোক্রেসি কর্মসূচী চলবে জানিয়ে বলেন, আমি চট্টগ্রাম বিভাগের কোতোয়ালি সংসদীয় আসন এলাকার ভোটার। ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে আমি ছোবানিয়া আলিয়া মাদ্রাসা ভোট কেন্দ্রে গিয়ে নিজের ভোটটি প্রয়োগ করতে পারিনি। আমাকে ভোট কেন্দ্রের ভেতরে থাকা আ. লীগের প্রার্থীর লোকজন তাদের সামনে ব্যালটে ভোট দিতে বলেন। এতে আমি অপারগতা প্রকাশ করলে আমাকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়।

নিজের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে না পারার পর ক্ষোভ থেকেই প্রতিবাদ হিসেবে একাই শুরু করি “মার্চ ফর ডেমোক্রেসি” কর্মসূচী। এরই মধ্যে আমি কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালীতে দাড়িয়ে কর্মসূচী করেছি। এখন নরসিংদী শেষ করে কিশোরগন্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় যাবো। পরে সিলেটের উদ্দেশ্যে যাত্রা করবো। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভোটাধিকার প্রয়োগ ও কার্যকর গণতন্ত্রের দাবিতে ব্যানারে মানুষের গণস্বাক্ষর ও মতামত লিখিয়ে নিচ্ছেন এই যুবক।

দেশের জনসাধারণের ভোটাধিকার প্রয়োগ ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত না হওয়া পর্যন্ত বাড়ি ফিরে যাবেন না জানিয়ে এই যুবক জানান, ২০১৯ সালের ১২ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল ভোটাধিকারের দাবিতে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পদযাত্রা করেছেন তিনি। একই বছর ১৪ মে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে পঁচা আপেল নিয়ে প্রতিবাদ করেছেন। ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত দুর্নীতি বন্ধের জন্য ৬৪ জেলার ডিসিকে স্মারকলিপি দিয়েছেন এবং দুর্নীতিবাজদের উদেশ্যে জেলায় জেলায় লালকার্ড প্রদর্শন করেছেন। ২০২০ সালের ১ অক্টোবর থেকে ২০ অক্টোবর প্রতীকী লাশ নিয়ে ঢাকা থেকে কুড়িগ্রামের অনন্তপুর সীমান্ত অভিমুখে পায়ে হেঁটে সীমান্ত হত্যা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন বলে দাবি এই যুবকের।

তার এবারের চলমান কর্মসূচিতে দেশবাসী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছেন হানিফ।