মাধবদীতে কিশোর ইজিবাইক চালক হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫

০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:২৩ পিএম | আপডেট: ১৪ মে ২০২২, ০৮:০১ এএম


মাধবদীতে কিশোর ইজিবাইক চালক হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৫

ওয়াজ মাহফিলে যাবার জন্য ভাড়া করে কিশোর চালককে খুন করে ইজিবাইক ছিনতাই

 

নরসিংদী প্রতিনিধি:

নরসিংদীর মাধবদীতে ইজিবাইক নিয়ে বের হয়ে নিখোঁজের পর অন্তর মিয়া (১৩) নামে এক কিশোর চালকের মরদেহ উদ্ধার ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। ওয়াজ মাহফিলে যাওয়ার কথা বলে ভাড়া নিয়ে ওই কিশোর চালককে খুন করে ইজিবাইক ছিনতাই করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত ৫ জনকে গ্রেপ্তার ও ছিনতাই হওয়া ইজিবাইক উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, আল আমিন (৩৬), বকুল মিয়া (৪৫), অহিদুল ইসলাম (২৫), ছগির মিয়া (৩১) ও সাজ্জাদ (৩২) ।

সোমবার দুপুরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান।

তিনি জানান, গত বুধবার (১ ডিসেম্বর) রাতে মাধবদীর বালাপুর এলাকায় একটি ওয়াজ মাহফিলে যাবার উদ্দেশ্যে পাঁচ ব্যক্তি চারশত টাকায় ওই কিশোরের ইজিবাইক ভাড়া করে। ওয়াজ মাফফিলে পৌঁছানোর আগেই খিলগাঁও গ্রামের পাশের একটি নির্জন স্থানে কিশোর চালককে লোহার রড দিয়ে আঘাত করে। এসময় গামছা দিয়ে বেঁধে কিশোরকে ডোবায় ফেলে দিয়ে তার ইজিবাইক ছিনতাই করে পালিয়ে যায়। পরদিন বিকালে তার লাশ পাওয়া যায়। এ ঘটনার তদন্ত ও জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযানে নামে গোয়েন্দা পুলিশ। জেলা গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল বাসারের নেতৃত্বে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল সোমবার ভোর পর্যন্ত নরসিংদীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কিশোর অন্তরকে হত্যা করে ইজিবাইক ছিনতাইয়ের কথা স্বীকার করেছে। এসময় হত্যায় ব্যবহৃত লোহার রড, গামছা জব্দ করাসহ ছিনতাই হওয়া ইজিবাইকটি উদ্ধার করা হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান আরও জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা আন্ত:জেলা ইজিবাইক ছিনতাই চক্রের সদস্য। তারা দীর্ঘদিন ধরে নিয়মিতভাবে নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ইজিবাইক ছিনতাই করে আসছে। গ্রেপ্তারকৃত সাজ্জাদ ও বকুলের বিরুদ্ধে নরসিংদীর শিবপুর ও মাধবদী থানাসহ নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় চুরি, ছিনতাই, খুনসহ একাধিক মামলা রয়েছে।   

জীবীকার তাগিদে ইজিবাইক চালানোর জন্য গত বুধবার (১ ডিসেম্বর) সকালে বাড়ি থেকে বের হয় অন্তর মিয়া। দিনের বেলায় ও রাত ৮টা পর্যন্ত তাকে ইজিবাইক চালাতে দেখেন স্থানীয়রা। পরে বুধবার রাতে সে আর বাড়ি ফিরেনি। বিভিন্ন স্থানে ইজিবাইক ও তাকে খোঁজাখুজির পর না পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে মাধবদী থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন পরিবার। 

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) বিকালে গ্রামের পাশে দরগাহ বাড়ি সংলগ্ন বালাপুরগামী সড়কের পাশের ডোবায় লাশ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। খবর পেয়ে মাধবদী থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। নিহত অন্তর মাধবদী থানার খিলগাঁও গ্রামের মো: কামাল হোসেনের ছেলে।