মাধবদী পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদ কাউন্সিলরদের

২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১৩ পিএম | আপডেট: ১৫ মে ২০২২, ০৪:২৫ এএম


মাধবদী পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদ কাউন্সিলরদের

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নরসিংদীর মাধবদীর পৌরমেয়র মো. মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিকের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন কাউন্সিলররা। গতকাল শনিবার দুপুরে মাধবদী পৌরসভা মিলনায়তনে প্যানেল মেয়র মো. শেখ ফরিদের সভাপতিত্বে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।


গত ১৬ জুন রাত ৮টার দিকে মাধবদী পৌরসভা মোড়ে আওয়ামীলীগের একপক্ষের হামলায় অপরপক্ষের ২ জন গুলিবিদ্ধ হন। ওই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ দুজন হলেন, মাধবদী পৌরসভার সাবেক কমিশনার ও সদর থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মো. জাকারিয়া (৩৯) ও মাধবদীর নূরালাপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সদস্য সচিব আবুল কালাম (৩০)। ঘটনার ৩৪ ঘণ্টা পর দুপক্ষের লোকজনই মাধবদী থানায় এসে পাল্টাপাল্টি মামলা করেন।


গুলিবিদ্ধ জাকারিয়ার বড়ভাই মো. আনোয়ার হোসেনের করা মামলায় পৌরসভার মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিককে প্রধান আসামী করে ১১ জনের নাম উল্লেখ করা হয় এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৪০ জনকে আসামী করা হয়। অন্যদিকে মেয়রের কর্মী ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মোজাম্মেল মিয়া বাদী হয়ে করা মামলায় গুলিবিদ্ধ জাকারিয়াকে প্রধান আসামি করে মোট ৭ জনকে আসামী করা হয়।  

সংবাদ সম্মেলনে কাউন্সিলররা বলেন, গত ১৬ জুন রাত ৮টার দিকে দুজন গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনা ঘটেছিল। এই ঘটনায় ১৮ জুন সকালে মাধবদী থানায় করা একটি মামলায় পৌরমেয়র মো. মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিককে প্রধান আসামী করা হয়। মামলাটি ছিল মিথ্যা, বানোয়াট, ষড়যন্ত্রমূলক ও প্রতিহিংসাপরায়ন। মেয়রের সম্মানহানি ও তাকে বিতর্কিত করার জন্যই এই মামলা দায়ের করা হয়েছিল। অথচ এই ঘটনার সঙ্গে মেয়রের কোন সম্পর্কই ছিল না।


এ সময় সাংবাদিকদের দেওয়া প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ঘটনার সময় পৌরমেয়র পৌরভবনে তাঁর কক্ষে অবস্থান করছিলেন। প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে, সভা শেষে বাদী পক্ষের লোকজন মেয়রের বিরুদ্ধে উস্কানীমূলক স্লোগান দিতে দিতে আক্রমনাত্মক ভঙ্গিতে পৌরভবনের দিকে যাচ্ছিলেন। প্রশাসন ও সাধারণ জনতার প্রতিরোধের মুখে জাকারিয়া জনতার উদ্দেশ্যে অস্ত্র তাক করেন। ওই সময় জনতার ধাওয়া খেয়ে পালানোর সময় নিজের হাতে থাকা অস্ত্রের গুলিতেই গুলিবিদ্ধ হন জাকারিয়া। পরে এই ঘটনাকে প্রতিহিংসামূলকভাবে মেয়রের ওপর চাপাতে ওই মামলা করেন বাদী পক্ষ।

প্যানেল মেয়র মো. শেখ ফরিদ তাঁর বক্তব্যে বলেন, আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানোর পাশাপাশি এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানাচ্ছি। একই সঙ্গে ঘটনার প্রকৃত সত্য উদঘাটন করে সাজানো নাটকের কারিগরদের শনাক্ত করার দাবি জানাচ্ছি।


 এ সময় পৌরসভাটির বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, পিয়ারা বেগম, ফরিদা ইয়াসমিন, মোসা. ফাতেমা বেগম, মায়া রানী দেবনাথ, পরিমল চন্দ্র ঘোষ, রাজীব হোসেন, মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, মো. হেলাল উদ্দিন, হায়দার আলী, গৌতম ঘোষ, মো. দেলোয়ার হোসেন ও মো. নওশের আলী।


জানতে চাইলে এই মামলার বাদী মো. আনোয়ার হোসেন জানান, ঘটনার সময় জাকারিয়া ও আবুল কালাম পৌরসভার মোড় দিয়ে যাওয়ার পথে মেয়রের নির্দেশে তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালানো হয় এবং মেয়র তার হাতে থাকা পিস্তল থেকে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়েন। তারপরই জাকারিয়া পায়ে গুলিবিদ্ধ হন। মাধবদীর পৌরমেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান নিজেই গুলি করেছেন তাই তাকে মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে।