শুল্ক কমানোসহ ৬ দফা দাবিতে নরসিংদীতে বিড়ি শ্রমিকদের মানববন্ধন

১৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৬:১২ পিএম | আপডেট: ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৪ পিএম


শুল্ক কমানোসহ ৬ দফা দাবিতে নরসিংদীতে বিড়ি শ্রমিকদের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বিড়িশিল্প ও তার শ্রমিকদের বাঁচাতে শুল্ক কমানোসহ ৬ দফা দাবিতে মানববন্ধন করেছে নরসিংদী জেলা বিড়ি শ্রমিক ইউনিয়ন। রোববার (১৭ জানুয়ারি) বেলা ১১টায় নরসিংদী কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাটের বিভাগীয় কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়।

চলতি অর্থবছরের বাজেটে বিড়ির উপর অতিরিক্ত ৪ টাকা মূল্যস্তর প্রত্যাহার, অগ্রীম ১০ শতাংশ আয়কর প্রত্যাহার, সিগারেটের মত ৩টি মূল্যস্তরকরণ, শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি ও এ শিল্পকে সুরক্ষা আইন বাস্তবায়নের আওতায় আনার দাবি জানানো হয় এই মানববন্ধনে। 

এ সময় বক্তারা বলেন, বিড়িশিল্পে কাজ করা অসহায় শ্রমিকদের দুঃখ দুর্দশা দেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাজেট বক্তৃতায় বিড়ির উপর কর কমিয়ে সিগারেটের উপর বেশি কর বাড়ানোর প্রস্তাব দেন। কিন্তু বিদেশি সিগারেট কোম্পানির ষড়যন্ত্রে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনা অমান্য করে বিড়িতে মাত্রাতিরিক্ত শুল্কারোপ করেছে। ফলে করের বোঝা সহ্য করতে না পেরে এই শিল্পের মালিকরা তাদের কারখানা বন্ধ করে দিচ্ছেন।

তারা আরও বলেন, বিড়ি ও সিগারেট দুটোই স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তাহলে ধূমপান বন্ধের নামে সিগারেটের চেয়ে বিড়িতে কেন শুল্ক বৃদ্ধি করা হয়েছে? বিড়ি দেশের গরীব মানুষ তৈরি করে এবং গরীব মানুষ খায়। সেখানে শ্রমের সুযোগ রয়েছে অন্যদিকে সিগারেট তৈরি হয় মেশিনে। অথচ প্রতি প্যাকেট সিগারেটে মূল্যস্তর বৃদ্ধি করা হয়েছে মাত্র দুই টাকা আর প্রতি প্যাকেট বিড়িতে চার টাকা। এটা চরম বৈষম্যমূলক। আগামী বাজেটে বিড়ির উপর শুল্ক বৃদ্ধি হলে কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে তা প্রত্যাহারে বাধ্য করা হবে।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি এমকে বাঙ্গালী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, যুগ্ম-সম্পাদক হারিক হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল গফুর ও নরসিংদী জেলা বিড়ি শ্রমিক নেতা আলী নোমান প্রমুখ।