পাঁচদোনায় ভাগিনার বিরুদ্ধে মামার জমি ভাড়া নিয়ে বেদখলের অভিযোগ

০২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০:৪৮ পিএম | আপডেট: ২০ জুন ২০২২, ০৫:৩৮ এএম


পাঁচদোনায় ভাগিনার বিরুদ্ধে মামার জমি ভাড়া নিয়ে বেদখলের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নরসিংদীর পাঁচদোনায় মামার নিকট থেকে জমি ভাড়া নেয়ার পর জাল দলিল সৃজন করে বেদখলের অভিযোগ উঠেছে ভাগিনার বিরুদ্ধে। পাঁচদোনা বাজারস্থ লাকরি পট্টিতে সাড়ে ৫ শতাংশ জমি নিয়ে এ ঘটনা ঘটেছে।
এ ঘটনায় সামাজিক মীমাংসার পরও জমির দখল না ছাড়ায় ভাগিনা গিয়াস উদ্দিনের বিরুদ্ধে মাধবদী থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী মামা নুরুল ইসলামের পরিবার।

অভিযোগ ও স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রায় ১০ বছর আগে ভাগিনা গিয়াস উদ্দিন তার মামা নূরুল ইসলাম ওরফে নুরু মিয়ার নিকট থেকে সাড়ে ৫ শতাংশ জমি ভূট্টা ভাঙ্গানোর কারখানা করার জন্য ১০ বছরের চুক্তিতে ভাড়া নেয়। প্রথম দুই বছর ভাড়ার টাকা স্বাভাবিক নিয়মে পরিশোধ করলেও পরবর্তীতে ভাড়ার টাকা দেয়া বন্ধ করে দেয় গিয়াস উদ্দিন। পরে মামা নুরুল ইসলাম বারবার তাগাদা দিলেও ভাড়ার টাকা পরিশোধ না করায় জমি ছেড়ে দিতে বলেন নুরু মিয়া। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ভাগিনা গিয়াস উদ্দিন তার দখলে থাকা জমি নিজের বলে দাবি শুরু করে এবং একটি জাল দলিল সৃজন করে।

পরে জমি উদ্ধারের জন্য ভুক্তভোগী মামা নুরু মিয়া পাঁচদোনা বাজার বণিক সমিতির নিকট লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের পর বণিক সমিতি কর্তৃক অভিযুক্ত গিয়াস উদ্দিনকে কয়েক দফা নোটিশ করলেও এতে সাড়া দেয়নি। পরবর্তীতে বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদুর রহমান মামুন নিজে সরাসরি উভয় পক্ষকে মীমাংসায় বসার জন্য বলেন।

এ নিয়ে একমাস আগে বণিক সমিতির মাধ্যমে সামাজিক সালিশ বসে। এতে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুল হালিম খান, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কফিল উদ্দিন ভুইয়া বাচ্চু এবং বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদুর রহমান মামুন উপস্থিত ছিলেন। এসময় উভয় পক্ষের ৬ জন আইনজীবীর উপস্থিতিতে সকল দিক বিবেচনায় এনে উভয় পক্ষকে সাড়ে ৫ শতাংশ জমি সমানভাবে বন্টন করে পজিশন দেখিয়ে দেয়া হয়। একই সাথে নূরু মিয়ার অংশে থাকা গিয়াস উদ্দিনের সব স্থাপনাসহ মালামাল সরিয়ে নেওয়ার জন্য সময় বেঁধে দেয়া হয়।

কিন্তু মীমাংসার এই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জমির দখল ছাড়েনি গিয়াস উদ্দিন। পরে বিষয়টি জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিএম তালেব হোসেনকে অবগত করানো হয়। তালেব হোসেন বিষয়টি সুরাহার জন্য পাঁচদোনা বণিক সমিতিসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের আবারও দায়িত্ব দেন। পরে আবারও সামাজিক মীমাংসা অনুযায়ী গত ২৯ জানুয়ারি নুরু মিয়ার পরিবারের ছেলে স্বপনসহ পরিবারের লোকজন তাদের জমিতে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ শুরু করে। এসময় অভিযুক্ত ভাগিনা গিয়াস উদ্দিন ও তার সহযোগী ১০/১৫ জন সন্ত্রাসী তাদেরকে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়।


এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নুরুল ইসলাম নুরু মিয়ার ছেলে স্বপন মিয়া বাদী হয়ে মাধবদী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। থানা থেকে ঘটনাটি তদন্তের জন্য পাঁচদোনা ফাঁড়ি পুলিশকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত গিয়াস উদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার পক্ষে কথা বলেন তার মেয়ের জামাতা শাহিন মিয়া। তিনি বলেন, আমার জানামতে আমার শশুর গিয়াস উদ্দিন ২০ বছর যাবৎ এই জমির ভোগদখলে আছেন। তবে জমি ভাড়া নেয়ার প্রশ্নে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

পাঁচদোনা ফাঁড়ির ইনর্চাজ এস আই ইউসুফ জানান, এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



এই বিভাগের আরও