মনোহরদীতে প্রতিবেশী নারীকে খুনের দায়ে ৭ জনের যাবজ্জীবন

০৪ আগস্ট ২০২২, ০৮:০০ পিএম | আপডেট: ১০ আগস্ট ২০২২, ০২:১৭ পিএম


মনোহরদীতে প্রতিবেশী নারীকে খুনের দায়ে ৭ জনের যাবজ্জীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নরসিংদীর মনোহরদীতে প্রতিবেশীকে খুনের দায়ে ৭ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার বিকেলে নরসিংদীর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ শারমিন পারভীনের আদালতে এই রায় প্রদান করা হয়।

নরসিংদী জজ আদালতের এপিপি এএমএন অলিউল্লাহ এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মনোহরদী থানার কামার আলগী গ্রামের মৃত আলাউদ্দিনের ছেলে এবাদুল্লাহ মিয়া (মৃত), একই গ্রামের মৃত মোমতাজ উদ্দিনের ছেলে জোহর আলী, কাছাব আলীর ছেলে জয়নাল আবেদীন, মৃত নমুদ্দিনের ছেলে কামরুল ইসলাম, একদুল্লাহ মিয়ার ছেলে আনোয়ার হোসেন, ছাত্তার মিয়ার ছেলে লুলু মিয়া ও আব্দুল বাতেন এর ছেলে কামরুল মিয়া।

নরসিংদী জজ আদালতের এপিপি এএমএন অলিউল্লাহ জানান, ২০০৭ সালে মনোহরদী থানার কামার আলগী গ্রামে টিউবওয়েলের মাথা খুলে নেয়াকে কেন্দ্র করে মৃত হাসিম উদ্দিনের মেয়ে, প্রবাসীর স্ত্রী সালমা আক্তারের সাথে ঝগড়া হয় প্রতিবেশীদের। এই জেরে প্রতিবেশীদের হাতে খুন হয় সালমা আক্তার। ঘটনার পরদিন সালমা আক্তারের বড় ভাই আবুল কাশেম বাদী হয়ে মনোহরদী থানায় ৪ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। পরে ৪ আসামীর মধ্যে আসামী এবাদুল্লাহর জবানবন্দীর ভিত্তিতে মামলায় অভিযুক্ত হয় আরও ৩ জনসহ মোট ৭ জন। পরে মামলা চলাকালীন সময়ে ৭ আসামীর মধ্যে এবাদুল্লাহ মারা যায়। বাকী ৬ আসামীর মধ্যে ৩ জন জামিনে বের হয়ে যায়  এবং বাকি ৩ জনকে রাখা হয় জেল হাজতে।

উক্ত মামলায় মোট ১৯ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন আদালত। এতে ৭ আসামী দোষী প্রমানিত হয়। প্রায় ১৫ বছর পর বৃহস্পতিবার ৬ আসামীর উপস্থিতিতে আদালত ৭ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন।



এই বিভাগের আরও